ফেসবুক ক্লোনিং যেভাবে রোধ করবেনঃ

ফেসবুক ক্লোনিং একটি সোশ্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং টেকনিক যার মাধ্যমে স্ক্যামাররা যেকোনো পাবলিক ফেসবুক প্রোফাইল এর তথ্য নিয়ে ফেইক প্রোফাইল তৈরি করে। হ্যাক না করেও এই পদ্ধতিতে ফেইক প্রোফাইল বানানো সম্ভব। এভাবে ফেইক প্রোফাইল তৈরি করার পর স্ক্যামাররা আপনার পরিচিত বন্ধু- বান্ধবিদের ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট পাঠায় যাতে করে ফেইক প্রোফাইলটি অনেক মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে পরতে পারে। 

এই স্ক্যামাররা সাধারণত,

১। পরিচিত মানুষদের কাছে স্ক্যাম লিংক পাঠায় ।

২। মিথ্যা পরিচয় দিয়ে টাকা ধার চায়।

৩। পরিচিত মানুষদের কাছ থেকে আপনার সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জানার চেষ্টা করে যাতে করে আপনার ফেইক প্রোফাইলটি আরও আপডেট করতে পারে। 

৪। এমনকি  গোপনীয় তথ্যও ফাঁস করে দিতে পারে। 

৫। আসল প্রোফাইলটি রিপোর্ট করে ডিসএবল করে দেয়ার চেষ্টা করে । 

অনেক সময় সচেতন মানুষেরাও এইধরনের ফেইক প্রোফাইল থেকে আসা রিকুয়েস্ট একসেপ্ট করে ফেলে কারণ ফেইক প্রোফাইলটি দেখতে অনেকটা আসল প্রোফাইল এর মতই হয়। 

আপনার অ্যাকাউন্ট ক্লোন হয়েছে কিনা কীভাবে বুঝবেন?

ফেইসবুকে নিজের নাম লিখে সার্চ করে দেখবেন আপনার নাম, ছবি এবং অন্যান্য তথ্য সম্বলিত অন্য কোন প্রোফাইল আছে কিনা। অনেক ক্ষেত্রে আমরা কিছু প্রোফাইলের লিংক ইনবক্সে পেয়ে থাকি যেগুলোকে রিপোর্ট করতে বলা হয়। এসব প্রোফাইল রিপোর্ট করার আগে যাচাই করে নিবেন কারণ অনেক সময় এই ধরণের মেসেজ/ লিংক স্ক্যামও হতে পারে। 

ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ক্লোন হয়ে গেলে কি করবেন?

 প্রথমেই অ্যাকাউন্ট টি রিপোর্ট করতে হবে। রিপোর্ট করার  করনীয়ঃ

১। ফেইক প্রোফাইল এ গিয়ে কভার পিক এর পাশের তিনটি ডট সাইনে ক্লিক করুন ।

২। Find Support or Report Profile অপশনটি সিলেক্ট করুন ।

৩। Pretending to be someone and follow the prompts অপশনটি সিলেক্ট করুন ।

এখন ঠিক এভাবেই আপনার সকল ফেসবুক ফ্রেন্ডসদের ফেইক আইডিটি রিপোর্ট করতে বলুন । 

ক্লোন আইডি থেকে রিকোয়েস্ট আসলে কি করবেন? 

কোন আইডি ফেইক বলে মনে হলে যার নামে আইডিটি খোলা হয়েছে তার সাথে যোগাযোগ করে যাচাই করে নিবেন, আগেই রিকোয়েস্ট একসেপ্ট করবেন না। 

কিভাবে ফেইসবুক ক্লোনিং রোধ করবেন? 

ফেইসবুকে প্রাইভেসি সেটিংস্‌ আপডেট করার মাধ্যমে ক্লোনিং এড়ানো সম্ভব। 

১। ফ্রেন্ড লিস্টের প্রাইভেসি পরিবর্তন করে “Only Me” দিতে হবে যাতে করে আপনার ফ্রেন্ড লিস্ট অন্য কেউ দেখতে না পারে। 

২। নিজের ইমেইল, ফোন নাম্বার এসব তথ্য  স্ক্যামারদের হাত থেকে বাঁচানোর জন্য  “only me” করে দিতে হবে।

৩। ফেসবুক লগইন করার সময় পাশের “ ? “ সাইনটি ক্লিক করুন। 

৪। Privacy Checkup এ ক্লিক করুন এবং পরবর্তী নির্দেশনাগুলো পূরণ করুন। 

ফেইসবুক ক্লোনিং রোধে সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে এবং কোন অপরিচিত মানুষের ফ্রেন্ড রিকুয়েস্ট একসেপ্ট করা থেকে বিরত থাকতে হবে। 

Know More

অনলাইন গোপনীয়তাঅনলাইন গোপনীয়তা

সোশ্যাল মিডিয়াতে নিজের ও অন্যের ব্যক্তিগত তথ্য গোপন রাখা অত্যন্ত জরুরী। যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করলে সকল প্রকার অনলাইন সমস্যা থেকে সহজেই সুরক্ষিত থাকা সম্ভব। যা যা ব্যক্তিগত রাখবেন এবং অনলাইনে

ফেসবুক একাউন্ট হ্যাক হলে করণীয়ফেসবুক একাউন্ট হ্যাক হলে করণীয়

ফেসবুক ব্যবহারকারীদের মাঝে মধ্যেই হয়রানির শিকার হতে হয়। দেখা যায় নিজের একাউন্ট বেদখল হয়ে যায়। সাধারণত একাউন্ট হ্যাক হলে এমনটি হয়। তবে একাউন্ট হ্যাক হলেও কিছু পদক্ষেপের মাধ্যমে ফিরে পাওয়া

ইন্টারনেটের নিরাপদ ব্যবহার ১ইন্টারনেটের নিরাপদ ব্যবহার ১

বর্তমান যুগে ইন্টারনেট আর মোবাইলের সহজলভ্যতার কারণে নানা রকম সুবিধার পাশাপাশি মানুষ নানা রকম ক্ষতিকারক ওয়েবসাইট ও হয়রানির সম্মুখীন হচ্ছে। অনেকে ইন্টারনেটের নিরাপদ ব্যবহারের বিষয়গুলো সম্পর্কে না জানার কারণে নানা