শিশুদের সুরক্ষা: আপনার বাচ্চাদের অনলাই্নে রক্ষা করুন। - Nirapod.Online

শিশুদের সুরক্ষা: আপনার বাচ্চাদের অনলাই্নে রক্ষা করুন।

ইন্টারনেট হল  একটি বিস্তৃত উন্মুক্ত সংস্থান যেখানে একজন সচেতন শিশু গণিতের সমস্যার  সমাধান থেকে শুরু করে কোনও প্রাপ্তবয়স্কদের সাইট বা সমস্ত কিছুর অ্যাক্সেস পেতে পারে। মার্চের মাঝামাঝি সময়ে বাংলাদেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনির্দিষ্ট  সময়ের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়  শিক্ষার্থীদের মধ্যে  কোভিড -১৯ এর বিস্তার রোধ করার জন্য । ঘোষণার ফলস্বরূপ, বেশিরভাগ প্রাইভেট স্কুলগুলো  শিশুদের সাথে যুক্ত থাকার জন্য অবিলম্বে অনলাইনে ক্লাস পরিচালনা করেন । এ কারণে, বর্তমানে শিশুরা আমাদের দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের একটি বিশাল পুল তৈরি করে ’যা মহামারীটির আগের সময়ের তুলনায় সংখ্যায় অনেক বেশি। অনলাইন কার্যক্রম গুলো যেমন  বাচ্চাদের বিভিন্ন উপায়ে উপকৃত করেছে  ঠিক তেমনি  আবার এটি শারীরিক এবং মানসিকভাবেও বিভিন্ন উপায়ে তাদের ক্ষতি সাধন করছে । বাচ্চারা নানান ভাবে সাইবার বুলিং, ব্ল্যাকমেইলস এবং অনলাইন প্রেডিয়েটর দের খপ্পরে পরে যায় । যেহেতু বাচ্চাদের পর্যাপ্ত সমালোচনামূলক চিন্তা করার দক্ষতা নেই, তাই তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য  এই মুহুর্তে পিতামাতারা  সর্বাধিক চ্যালেঞ্জ এর মুখোমুখি হয়েছে। 

এখানে আমরা আলোচনা করব বাচ্চাদের অনলাইন জগতে কিভাবে নিরাপদ রাখা যায় 

শিশুরা সেই মিডিয়াই গ্রহণ করবে যার ফেইস ভ্যালু বেশি। দেখতে পাওয়া চিত্রগুলি দেখে তারা ভীত হতে পারে। এমনকি এমনি তারা অনিচ্ছাকৃত ভাবে বিভিন্ন অসঙ্গত ওয়েবসাইট এর সম্মুখীন হতে পারে। বাচ্চাদের রক্ষা করা পিতামাতা এর কাছ থেকে শুরু হওয়া উচিত ।পিতামাতার উচিত ইন্টারনেট ব্যবহারের সম্ভাব্য সুবিধা এবং বিপদ উভয় সম্পর্কে বাচ্চাদের অবহিত  করা। তাদের উচিত সন্তানদের ইন্টারনেট কার্যক্রম গুলো পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে পর্যবেক্ষণ করা  এবং বাচ্চারা সঠিক ভাবে  ব্যাবহার করছে কিনা এবং ঝুকিমুক্ত আছে কিনা তা  নিশ্চিত করা

প্রতিরক্ষামূলক ব্যবস্থা হিসাবে, পিতামাতারা ইন্টারনেট পরিষেবা সরবরাহকারী (আইএসপি) কে প্যারেন্ট-কন্ট্রোল বিকল্পগুলি সরবরাহ করতে বলতে পারেন যা অনুপযুক্ত সাইটে অ্যাক্সেস অবরুদ্ধ করে এবং ব্যক্তিগত তথ্য অনলাইনে প্রেরণে বাধা দেয়।

অভিভাবকরা তাদের সন্তান যখন ইন্টারনেটে থাকবেন তখন কী করতে পারবে  এবং কী করতে পারবে না তা সেট করে দিতে পারেন।  এর সাথে, তারা বাচ্চাদের  ইন্টারনেট ব্যবহারের একটি সীমাও নির্ধারণ করতে পারে যাতে করে তারা ইন্টারনেটে সময় নষ্ট না করতে পারে যা  তাদের অনেক সম্ভাব্য হুমকির সামনে ফেলে দেয়।  সন্তানের ডিভাইসের ওয়াই ফাই ডিসাবেল করে ইন্টারনেট  এর  ব্যবহার সীমাবদ্ধ করা যেতে পারে । 

শিশুরা আজকাল অনলাইন গেমিংয়ের প্রতি বেশি আসক্ত, পিতামাতারা অনলাইন গেমিং পর্যবেক্ষণ করতে পারে, অনেকগুলি জনপ্রিয় ভিডিও গেম রয়েছে যেমন- PUBG, যেখানে অনেক  ইন্টারঅ্যাকশন অংশ রয়েছে যেখানে ব্যবহারকারীরা একে অপরের বিরুদ্ধে খেলতে পারেন এবং গেমটি সম্পর্কে সরাসরি  চ্যাট বা কথা বলতে পারেন যা শিশুদের জন্য সম্ভাব্য বিপদের কারন হতে পারে । পিতামাতার উচিত তাদের বাচ্চাদের এ জাতীয় গেম খেলা থেকে বিরত রাখা । 

অভিভাবকরা তাদের ব্রাউজার আপডেট করতে পারে হোক সেটি ক্রোম বা ফায়ারফক্স এবং প্লাগইন ডাউনলোড করতে পারে  যা কোন সন্দেহজনক ওয়েবসাইটে বাচ্চাদের  অ্যাক্সেস করতে বাধা দেবে। যেহেতু বাংলাদেশের বেশিরভাগ মানুষ ক্রোম ব্যবহার করে, তাই আমরা METACERT রেফার করব। এটি শিশুদের জন্য উপযুক্ত নয় এমন পেইজগুলোকে স্বয়ংক্রিয়ভাবে অবরুদ্ধ করে।  

অভিভাবকরা ডিভাইসের প্রাইভেসি সেটিংস পরিবর্তন করতে পারে যাতে তা  অনলাইন শার্কের সাথে সংযুক্ত না হয়ে যায়।

একটি শিশু-বান্ধব সার্চ  ইঞ্জিন প্রতিরোধমূলক প্যারেন্টিংয়ে কিছুটা সহায়তা করতে পারে; একটি শিশু-বান্ধব সার্চ  ইঞ্জিন কেবল সেসকল ফলাফলগুলি প্রদর্শন করবে যা শিশুদের জন্য উপযুক্ত। যেমনঃ KidRex.org Or Searchypant.com . 

 ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ করতে পারে এমন কোনও ভাইরাস ডাউনলোড থেকে বাচ্চাদের বিরত থাকতে পিতা-মাতারা পপ-আপগুলি অবরুদ্ধ করতে পারেন। ইউটিউব এবং গুগলে ও  পিতামাতার কন্ট্রোল  সেট করতে পারে কারণ এই দুটি সাইটই বেশিরভাগ বাচ্চারা ব্যবহার করে। 

পিতামাতারা তাদের সন্তানদের ব্যক্তিগত তথ্য ব্যক্তিগত রাখার বিষয়ে শিক্ষা দিতে পারেন; ফেসবুক বা অন্য কোনও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যক্তিগত তথ্য শেয়ার  না করার বিষয়ে বাচ্চাদের  শেখানো যেতে পারে কারন,  শিশুরা অজান্তেই  অনলাইনে প্রচুর ব্যক্তিগত বিবরণ প্রকাশ করতে পারে যা পরিচয়/ তথ্য চুরি, ব্ল্যাকমেইল করার জন্য যথেষ্ট ।

পিতামাতারা প্রতি মাসে তাদের বাচ্চাদের ডিভাইস কিংবা ব্রাউসারের প্রাইভেসি  সেটিংস চেক করা উচিত । তাদের উৎসাহিত করা উচিত যাতে অনলাইনে কোন ধরনের হয়রানির বা অন্য কোনও অস্বাভাবিক পরিস্থিতির মুখোমুখি হলে শিশুরা যাতে করে তাদের কাছে আসতে পারে। বাচ্চাদের যে কোন অনলাইন হুমকি বা অন্যান্য সমস্যায়  পরলে তা ধৈর্য সহকারে মোকাবেলা করা উচিত এবং তাদের উপর রাগ  হওয়া বা দোষ দেওয়া উচিত নয় অন্যথায় তারা পরের বার যখন এরকম কোন বিপদের সম্মুখীন হবে তখন পিতা মাতার  সাহায্য নেবে না। 

পিতামাতার জন্য  অনলাইনে বাচ্চাদের ক্রিয়াকলাপ তদারকি করা চ্যালেঞ্জিং হতে পারে,  তবে যেহেতু আরও বেশি বেশি স্কুল অনলাইন প্ল্যাটফর্মের দিকে চলে যাচ্ছে এবং শিশুরা অনলাইনে আরও বেশি ব্যস্ত হয়ে উঠছে, আমাদের অবশ্যই তাদের  উপযুক্ত শিক্ষা দিতে যে অনলাইন কিভাবে  তাদের আচার আচরণ হওয়া উচিত এবং ইন্টারনেটে কিভাবে সুরক্ষিত থাকতে হয়  যাতে তারা ভার্চুয়াল বিশ্বে নিরাপদ থাকতে পারে ।

Leave a Reply

Know More

টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন এর গুরুত্ব এবং প্রয়োজনীয়তাটু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন এর গুরুত্ব এবং প্রয়োজনীয়তা

 দৈনন্দিন জীবনে আমরা বিভিন্ন কাজে সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম ব্যাবহার করে থাকি। এক্ষেত্রে অনেক সময় অনলাইনে শেয়ার করা বিভিন্ন তথ্য নিরাপদ এবং সুরক্ষিত রাখার জন্য Two Factor Authentication এর গুরুত্ব অনেক

অনলাইনে আপনার অর্থ সুরক্ষিত করা: একটি নিরাপদ অনলাইন এবং মোবাইল-ভিত্তিক ব্যাংকিংয়ের অভিজ্ঞতা অর্জন।অনলাইনে আপনার অর্থ সুরক্ষিত করা: একটি নিরাপদ অনলাইন এবং মোবাইল-ভিত্তিক ব্যাংকিংয়ের অভিজ্ঞতা অর্জন।

প্রযুক্তির অগ্রগতি, অনলাইন এবং মোবাইল-ভিত্তিক ব্যাংকিংয়ের প্রবর্তনের সাথে, আমরা এখন   কেবলমাত্র একটি ক্লিকের মাধ্যমে আমাদের অর্থের অ্যাক্সেস পেতে পারি। COVID-19 কে মোকাবেলায় বিশ্বব্যাপী লকডাউন ব্যবস্থা চালু করার ফলে ,